Home / লাইফস্টাইল / চোখের পাপড়ির যত্নে

চোখের পাপড়ির যত্নে

তেমনি দেখেছি তারে অন্ধকারে; বলেছে সে, ‘এত দিন কোথায় ছিলেন?’ পাখির নীড়ের মতো চোখ তুলে নাটোরের বনলতা সেন।

জীবনানন্দ দাশের বিখ্যাত সেই বনলতা সেন। তার চোখে সাজের বাহুল্য ছিল না। ছিল না বাহারি প্রসাধন। তবু তার কাছেই দুদণ্ড শান্তি খুঁজে পাওয়া কবি বর্ণনা করেছেন সেই মায়াময় চোখ দুটিকে, দিয়েছেন অসাধারণ এক উপমা।

চোখের দিকে চেয়ে বলা একটা কথায় ঘুরে যায় পরিস্থিতি। আর চোখই নাকি মনের আয়না। সেই আয়নার কত-না ভাগ। মণি, পাতা, পাপড়ি, সাদা অংশ—সব মিলিয়েই চোখের সৌন্দর্য। চোখের পাপড়ির সুস্থতা তাই চোখের সৌন্দর্যেরই অংশ।

রেড বিউটি স্যালনের স্বত্বাধিকারী ও রূপবিশেষজ্ঞ আফরোজা পারভীন বলেন, ‘খুব কম সাজলেও চোখে একটু কাজল বা আইলাইনার দেন অনেকেই। আর ভারী সাজের সময় আলাদাভাবে চোখের সাজ তো থাকেই। চোখ সাজানোর আগে ও সাজ তোলার সময় কিছু বিষয় খেয়াল রাখলে আর সুষম খাদ্যাভ্যাস গড়ে তুললে চোখের পাপড়ি সুস্থ ও সুন্দর থাকে। এর জন্য বাড়তি যত্নের প্রয়োজন হয় না।’

কিছু পরামর্শ

খাদ্যাভ্যাস

সুষম খাদ্যাভ্যাস না থাকলে চোখের পাপড়ির সৌন্দর্য নষ্ট হতে পারে। নিজের খেয়ালখুশিমতো ডায়েট বা খাদ্যাভ্যাস করা উচিত নয়। কোন খাবারে কোন পুষ্টি উপাদান আছে, সেই উপাদান শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় কি না বা সেটা বাদ দিলে শরীরের কোনো অংশের ওপর কোনো বিরূপ প্রভাব পড়বে কি না—এসব জেনে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত খাবারটি খাদ্যতালিকায় রাখবেন কি না। সেটা খাদ্যতালিকায় রাখলেও সপ্তাহে কত দিন রাখতে হবে—এ রকম সব উপাত্ত জেনে সিদ্ধান্ত নেওয়া প্রয়োজন। খাদ্যতালিকা ঠিক করতে তাই পুষ্টিবিদের সহায়তা নেওয়া উচিত।

সাজের আগে যা
চোখে ব্যবহারের জন্য যে ধরনের প্রসাধনই কিনুন না কেন, তার গুণগত মান নিশ্চিত করে নিন। সাজের আগে চোখের উপরিভাগ ও পাপড়ি পরিষ্কার আছে কি না, তা খেয়াল করার পরামর্শ দিলেন আফরোজা পারভীন। ময়লা চোখ সাজানো ঠিক নয়। আবার চোখ সাজাতে গিয়ে কোনোভাবেই অতিরিক্ত ঘষাঘষি বা বাড়তি চাপ দেওয়া যাবে না। এতে পাপড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

সাজ তোলার সময়
চোখে কাজল, আইলাইনার, মাসকারা বা অন্য যা কিছুই ব্যবহার করা হোক না কেন, সাজ তোলার সময় অবশ্যই আই মেকআপ রিমুভার ব্যবহার করুন। এতে চোখের পাপড়ি ভালো থাকে। ফেসওয়াশ বা অন্য কিছু দিয়ে চোখের মেকআপ তোলা ঠিক নয়।

কৃত্রিম পাপড়ি ব্যবহার করলে
কেউ কেউ বাড়তি, অর্থাৎ কৃত্রিম পাপড়ি ব্যবহার করতে পছন্দ করেন। খেয়াল রাখুন, এই বাড়তি পাপড়ির যে আঠা, তা যেন পরিষ্কার থাকে। আর যেন বেশি সংকুচিত না হয় যাতে চোখের পাতা বা পাপড়িতে চাপ লাগে। আলগা বা বাড়তি পাপড়ি ব্যবহার করতে চাইলে সেটির গুণগত মান সম্পর্কেও নিশ্চিত হয়ে নিন।

পাপড়িতে খুশকি
কারও কারও চোখের পাপড়িতে খুশকি হতে দেখা যায়। পাপড়ির স্বাভাবিক বিন্যাস নষ্ট হতেও দেখা যায়। নিজে থেকে চোখের সমস্যার জন্য কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে দ্রুত চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *