Home / লাইফস্টাইল / ঘুমের আগে ত্বকের যত্ন

ঘুমের আগে ত্বকের যত্ন

সারা দিনের কাজ সেরে প্রশান্তির ঘুম। কিন্তু ভোরে ঘুম ভেঙে মুখ-হাত ধোয়ার খানিক পর হয়তো দেখা গেল, ত্বকটা ভীষণ শুষ্ক, চুলগুলো নিষ্প্রাণ। দিনের কাজের শুরুতেই অস্বস্তি। শীতের রাতে হুট করে ঘুমিয়ে পড়লে পরদিন সকালে এমন পরিস্থিতিতে পড়তেই পারেন। তাই সারা দিন পরিশ্রমের পর ঘুমের আগে অল্প একটু সময় বরাদ্দ রাখুন নিজের জন্যে। যত্ন নিন নিজের। ত্বকের যত্নের অভ্যাসগুলো রপ্ত করে ফেললে রোজকার জীবনে এই কাজগুলোকে বাড়তি ঝামেলা বলে মনে হবে না। শীতের কটা দিন নিয়মিত এমন সু-অভ্যাস বজায় রাখলে ত্বক ও চুল সুস্থ রাখতে গিয়ে খুব একটা ঝক্কিতে পড়তে হবে না।

বিন্দিয়া এক্সক্লুসিভ বিউটি কেয়ারের রূপবিশেষজ্ঞ শারমিন কচি জানালেন সেসব সু-অভ্যাসের কথা—

মুখের ত্বকের জন্য

শীতের রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে অবশ্যই ত্বক পরিষ্কার করে নেওয়া প্রয়োজন বলে জানালেন শারমিন কচি। ত্বক পরিষ্কার করার জন্য প্রথমে অলিভ অয়েল বা বেবি অয়েল দিয়ে মুখ ভালো করে ম্যাসাজ করে নিতে হবে। এরপর কুসুম গরম পানিতে কাপড় ভিজিয়ে মুখটা মুছে ফেলুন। পরে ভালো কোনো ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

মুখ ধোয়ার পর অবশ্যই ত্বকের আর্দ্রতা নিশ্চিত করুন। ময়েশ্চারাইজার কিংবা ময়েশ্চারাইজিং নাইট ক্রিম ব্যবহার করা যেতে পারে। ত্বক তৈলাক্ত প্রকৃতির না হলে এসবের পরিবর্তে অলিভ অয়েলও ব্যবহার করতে পারেন। সমপরিমাণ অলিভ অয়েল ও পানি একসঙ্গে নিয়ে আঙুলের সাহায্যে ভালোভাবে মিশিয়ে এরপর মিশ্রণটি মুখে লাগিয়ে নিন। ময়েশ্চারাইজার হিসেবে যে সামগ্রীই ব্যবহার করুন না কেন, তা ভালোভাবে পুরো মুখে ম্যাসাজ করে ঘুমান। সকালে পাবেন প্রাণবন্ত ত্বক।

যাঁরা সারা দিন নিজের যত্ন নেওয়ার সময় পান না, তাঁরা অবশ্য তেল দিয়ে মুখের ত্বক পরিষ্কার করার পর সপ্তাহে ১-২ দিন ফেসপ্যাক ব্যবহার করতে পারেন। পাকা কলা, পাকা পেঁপে ও ময়দা একসঙ্গে মিশিয়ে নিয়ে মুখে লাগিয়ে রাখুন ১০-১৫ মিনিট। এরপর কুসুম গরম পানিতে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

হাত-পায়ের যত্নে

বাইরে থেকে ফিরে কুসুম গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে সেই পানিতে হাত-পা ভিজিয়ে রাখুন ১০-১৫ মিনিটের জন্য। এরপর নরম ব্রাশে শ্যাম্পু লাগিয়ে হালকা করে ঘষে মরা চামড়া তুলে ফেলুন। ফেটে যাওয়ার মাত্রার ওপর নির্ভর করছে সপ্তাহে কদিন এভাবে যত্ন নিতে হবে। হাত-পায়ের ত্বক অতিরিক্ত ফেটে গিয়ে থাকলে প্রতিদিনই এভাবে যত্ন নিন। নইলে সপ্তাহে ২-৩ দিন যত্ন নিলেও চলবে।

অলিভ অয়েল কিংবা লেবুর রসের সঙ্গে সমপরিমাণ চিনি মিশিয়ে নিয়ে স্ক্রাব তৈরি করতে পারেন। ২-৩ দিন পরপর হাত-পা স্ক্রাব করুন।

রাতে ঘুমানোর আগে হাতে-পায়ে ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে নিন। চাইলে অয়েল ম্যাসাজ করতে পারেন। ময়েশ্চারাইজার হিসেবে যেকোনো বডি অয়েল বেছে নেওয়া যায়। বাড়তি আর্দ্রতার জন্য নারকেল তেলও বেছে নিতে পারেন। সকালে হাত-পা ধুয়ে ফেলুন।

গোড়ালি ফাটা রোধে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পা ধুয়ে ভ্যাসলিন ও লেবুর রসের মিশ্রণ ভালোভাবে গোড়ালিতে লাগিয়ে নিন। এরপর মোজা পরে ঘুমান। সকালে পা ধুয়ে আলতো করে মুছে নিন।

পুরো শরীরের যত্নে

পুরো শরীরেই রাতে ময়েশ্চারাইজার লাগাতে হবে। সম্ভব হলে ঘুমানোর আগে কুসুম গরম পানিতে শরীর ধুয়ে নিন। সমপরিমাণ জলপাই তেল বা বডি অয়েল ও পানির মিশ্রণ গলা থেকে পা পর্যন্ত লাগাতে পারেন। যেকোনো ধরনের ত্বকেই এটি মানিয়ে যায়। এই মিশ্রণ লাগানোর পর ডিপ ময়েশ্চারাইজিং ক্রিম লাগিয়ে নিতে পারেন। আবার তেল মালিশ করতে না চাইলে শুধু ডিপ ময়েশ্চারাইজিং ক্রিমও ব্যবহার করা যায়।

ঠোঁটের যত্নে

আধা চা–চামচ মধু ও এক চা–চামচ অলিভ অয়েল মিশিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে ঘুমাতে পারেন। চাইলে ব্যবহার করতে পারেন গ্লিসারিনও।

চুলের যত্নে

এক দিন পরপর ঘুমানোর আগে চুলের গোড়া ও আগায় গরম তেল মালিশ করতে পারেন। এতে চুলের রুগ্ণভাব কমে, আগা ফেটে যাওয়ার সমস্যাও কমে। অলিভ অয়েল বা নারকেল তেল বেছে নিতে পারেন। চুল হালকাভাবে বেঁধে ঘুমান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *